নতুন সাজে সাজবে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম

8

অনলাইন ডেস্ক: রাজধানী ঢাকার গুলিস্তানে (পল্টন থানা) অবস্থিত বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামকে নতুন করে সাজিয়ে তোলার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এ লক্ষ্যে ‘ঢাকাস্থ বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের অধিকতর উন্নয়ন’ শীর্ষক প্রকল্প গ্রহণ করেছে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়। আগামী ২০২১ সালের ৩০ জুনের মধ্যে প্রকল্পটির কাজ শেষ করবে বাস্তবায়নকারী সংস্থা জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ। এ প্রকল্পে সরকারের মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ৯৮ কোটি ৩৬ লাখ টাকা, যার পুরোটাই সরকারের নিজস্ব তহবিল থেকে জোগান দেওয়া হবে।

জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে কোনও খেলার আয়োজন করছে না কর্তৃপক্ষ। সর্বশেষ চলতি বছরের মার্চ মাসে বঙ্গমাতা ফজিলাতুন নেছা মুজিব ফুটবল টুর্নামেন্ট আয়োজন করা হয়। তখন এই স্টেডিয়ামের নানা সমস্যা দৃষ্টিতে পড়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের। এরপরই তড়িঘড়ি করে স্টেডিয়ামের উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণ করা হয়।

বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামের গ্যালারিতে বেশিরভাগ চেয়ারই ভাঙাসংশ্লিষ্টরা বলছেন, প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামের চেহারা পাল্টে যাবে। এতে স্টেডিয়ামে জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক ফুটবলসহ অন্যান্য ইভেন্টের খেলা আয়োজন সহজ হবে।
সরেজমিন গিয়ে দেখা গেছে, মাঠের অভ্যন্তরে কোনও ঘাস নেই, খানাখন্দে পরিণত হয়েছে পুরো মাঠ। বৃষ্টির সময় মাঠের বিভিন্নস্থানে পানি জমে থাকে। এছাড়া ভেঙে গেছে স্টেডিয়ামের গ্যালারি শেড, নেই বসার চেয়ার। যা আছে তাও ভেঙে চৌচির। খেলোয়াড়দের ড্রেসিং রুমের আলাদা বৈশিষ্ট্য বলতে কিছু নেই। দরজা-জানালাও ভাঙা, ফ্লাড লাইট পুরোটা কাজ করে না। সিসিটিভি কয়টা সচল আর কয়টা অচল সে তথ্যও নেই কারও কাছে। বৈদ্যুতিক জেনারেটরেও রয়েছে ত্রুটি। এলইডি স্ক্রিন কাজ করে না। আধুনিকায়ন করা প্রয়োজন ভিআইপি ও প্রেসিডেন্ট বক্সের।

বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামের গ্যালারির বর্তমান চিত্রএ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামটির সংস্কার জরুরি হয়ে পড়েছে। এর অনেক কিছুতেই আধুনিকায়ন জরুরি। স্টেডিয়ামটিকে আন্তর্জাতিক ম্যাচ অনুষ্ঠিত করার যোগ্য হিসেবে গড়ে তোলা হবে। এ লক্ষ্যে একটি প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে।

পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, স্টেডিয়ামের উন্নয়ন প্রকল্পটি ২০১৮-১৯ অর্থবছরে আর এডিপিতে বরাদ্দবিহীন অননুমোদিত নতুন প্রকল্প তালিকায় অন্তর্ভুক্ত ছিল। সূত্র আরও জানিয়েছে, প্রকল্পের আওতায় স্টেডিয়ামের মাঠ উন্নয়ন করা হবে। গ্যালারি শেড নির্মাণ ও চেয়ার স্থাপন হবে। আন্তর্জাতিক এবং স্থানীয় খেলোয়াড়দের ড্রেসিং রুমের আধুনিকায়ন হবে। স্থাপন হবে ফ্লাড লাইট, সিসিটিভি ক্যামেরা ও জেনারেটর। এলইডি স্ক্রিন, অ্যাথলেটিক ট্র্যাক, ডিজিটাল বিজ্ঞাপন বোর্ডও স্থাপন করা হবে।

বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের গ্যালারিনতুন করে স্থাপন হবে মিডিয়া সেন্টার, টিকিট কাউন্টার ও ডোপ-টেস্ট রুম। চিকিৎসা কক্ষ, ভিআইপি বক্স, প্রেসিডেন্ট বক্স, টয়লেট উন্নয়নেরও কথা রয়েছে। এছাড়া প্রকল্পের আওতায় চিকিৎসা সরঞ্জাম, জিম সরঞ্জাম, সাব-স্টেশনের সরঞ্জাম, এসি, সৌর প্যানেল সরবরাহ ও পরামর্শ সেবা ইত্যাদির সংস্কার কাজ করা হবে।

পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান জানিয়েছেন, প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের প্রয়োজনীয় অবকাঠামোগত উন্নয়ন ও সংস্কার হবে। এর ফলে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ফুটবলসহ অন্যান্য ইভেন্টের ক্রীড়া প্রতিযোগিতা আয়োজন, প্রশিক্ষণ ও অনুশীলনের মাধ্যমে দক্ষ খেলোয়াড় গড়ে তোলা সহজ হবে।

যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, প্রকল্পটি বাস্তবায়নের জন্য জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) অনুমোদন মিলেছে। সব ঠিক থাকলে আগামী ২০২১ সালের মধ্যে নতুন সাজে সাজবে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here