বাংলাদেশ কনসুলেট জেনারেল টরন্টো’র উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবস এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর ৪৪তম শাহাদত বার্ষিকী পালন

12

বাংলাদেশ কনসুলেট জেনারেল টরন্টো যথাযথ ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে জাতীয় শোক দিবস এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদত বার্ষিকী পালন করে। জাতীয় শোক দিবস এবং জাতির জনকের ৪৪তম শাহাদত বার্ষিকী উপলক্ষে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করা হয় এবং ১৫ আগস্ট কালো রাতে বঙ্গবন্ধুসহ যারা শহীদ হয়েছিলেন তাদের আত্মার শান্তি কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়।
কনসুলেট জেনারেল সাপ্তাহিক ছুটির দিনে (শনিবার, ১৭ আগস্ট ২০১৯) টরন্টো শহরের একটি স্থানীয় কমিউনিটি হলে বাংলাদেশ কমিউনিটির উপস্থিতিতে শোক দিবসের অনুষ্ঠান আয়োজন করে। অনুষ্ঠানে পবিত্র কুরআন, বাইবেল, গীতা ও ত্রিপিটক পাঠ করা হয় এবং জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে প্রেরিত রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বাণী পাঠ করা হয়। এছাড়া বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সদস্যদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন, বঙ্গবন্ধুর উপর প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শন ও বিশেষ মোনাজাত করা হয়। অনুষ্ঠানে মুক্তিযোদ্ধা, বিশিষ্ট বাংলাদেশী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কানাডার সদস্যগণ বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্ব, আত্মত্যাগ ও মহিমান্বিত জীবনগাঁথা নিয়ে আলোচনা করেন।
অনুষ্ঠানে কানাডার টরন্টোতে নিযুক্ত বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল নাঈম উদ্দিন আহমেদ জাতির পিতার সংগ্রামী জীবন, ঐন্দ্রজালিক নেতৃত্ব, আত্মত্যাগ ও দূরদর্শী পররাষ্ট্রনীতি সম্পর্কে আলোকপাত করেন। তিনি উল্লেখ করেন যে, স্বাধীন বাংলাদেশে জাতির পিতা হত্যা ও যুদ্ধাপরাধের বিচারের মাধ্যমে ইতিহাসের ঘৃণ্যতম অপরাধীদেরকে বিচারের আওতায় আনা হয়েছে এবং বাঙালি জাতি ‘অপরাধীদের দায় মুক্তি’ প্রদানের গøানী হতে মুক্তি পেয়েছে। কনসাল জেনারেল বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার লক্ষ্যে বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত ‘রূপকল্প ২০২১’ ও ‘রূপকল্প ২০৪১’ বাস্তবায়নে সকলকে দলমত নির্বিশেষে কাজ করার আহŸান জানান।
বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেল টরন্টো কর্তৃক আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে বীর মুক্তিযোদ্ধা, বিশিষ্ট বাংলাদেশী, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কানাডা চ্যাপ্টারের নেতৃবৃন্দ এবং কনস্যুলেটের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও তাদের পরিবারবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here