বাইডেনের শপথের দিন সমাবেশ করবেন ট্রাম্প

7

অনলাইন ডেস্ক : প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প নাটকীয়ভাবে হোয়াইট হাউস ত্যাগ করতে পারেন। এ ধরনের একটা পরিকল্পনা ভেতরে-ভেতরে চলছে বলে হোয়াইট সূত্রের বরাত দিয়ে মার্কিন গণমাধ্যমে খবর বের হয়েছে।

মার্কিন ঐতিহ্য অনুযায়ী নতুন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ২০ জানুয়ারি শপথ গ্রহণ করবেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠান এবারে অনেকটাই নিয়ন্ত্রিত এবং বেশির ভাগই ভার্চ্যুয়াল করা হবে বলে জো বাইডেন ইঙ্গিত দিয়েছেন। একই সময়ে ফ্লোরিডায় সমাবেশ করবেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। সেখানে এবারের নির্বাচনে জালিয়াতি করে তাঁকে হারানো হয়েছে উল্লেখ করে ২০২৪ সালের নির্বাচনে লড়ার ঘোষণা দেবেন তিনি।

ট্রাম্পের এমন এক প্রস্তুতির কথা এক্সিওস নামের একটি সংবাদমাধ্যমে প্রথমে প্রকাশিত হয়। এর জের ধরে ফক্স নিউজ, এনবিসিসহ অন্যান্য সংবাদমাধ্যমেও ৬ ডিসেম্বর এই খবর প্রকাশিত হয়।

এদিকে রিপাবলিকান দলের একের পর এক নেতা প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ওপর তাদের বিরক্তি প্রকাশ করতে শুরু করেছেন। সর্বশেষ জর্জিয়া অঙ্গরাজ্যের লেফটেন্যান্ট গভর্নর জিওফ ডানকান বলেছেন, ট্রাম্প জর্জিয়া রাজ্যের নির্বাচনে জয়ী হতে পারেননি। নির্বাচনে হেরে ট্রাম্প যে আচরণ করছেন, কোনো অবস্থায়ই তা যুক্তরাষ্ট্রের ভাবধারার সঙ্গে যায় না।

এনবিসি টিভির এক খবরে বলা হয়েছে, প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের শপথ অনুষ্ঠানে থাকবেন না। যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে পূর্বসূরি প্রেসিডেন্ট নতুন প্রেসিডেন্টের শপথ অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকা দীর্ঘদিনের ঐতিহ্য
জর্জিয়ার অঙ্গরাজ্যে ব্যাপক ভোট কারচুপি হয়েছে বলে ডোনাল্ড ট্রাম্প অভিযোগ করে আসছেন। রাজ্যের রিপাবলিকান গভর্নর, লেফটেন্যান্ট গভর্নরসহ নির্বাচন পরিচালনার সঙ্গে জড়িত কর্মকর্তাদের সবাই রিপাবলিকান দলের। ট্রাম্পের এমন আচরণ তাঁর নিজের দলের নেতা-কর্মীদেরই আহত করেছে। সর্বশেষ গত শনিবার জর্জিয়ায় দুজন রিপাবলিকান সিনেটরের সমর্থনে আয়োজিত নির্বাচনী সমাবেশের নামে দেওয়া বক্তৃতায় ট্রাম্প তাঁর সেই ভোট জালিয়াতির কথা বলে গেলেন। বক্তৃতায় বললেন, তাঁকে ভোট কারচুপির মাধ্যমে হারানো হয়েছে।

এনবিসি টিভির এক খবরে বলা হয়েছে, প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের শপথ অনুষ্ঠানে থাকবেন না। যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে পূর্বসূরি প্রেসিডেন্ট নতুন প্রেসিডেন্টের শপথ অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকা দীর্ঘদিনের ঐতিহ্য। উত্তরসূরি প্রেসিডেন্টের জন্য একটা গোপন চিঠিও ওভাল অফিসের টেবিলের ড্রয়ারে রেখে যান পূর্বসুরী প্রেসিডেন্ট। এ চিঠিতে গোপন পরামর্শের কথা হয়তো থাকে। এমন চিঠিতে কী লেখা থাকে, তা কখনো প্রকাশ করা হয় না।

এবার এমন কিছুই হচ্ছে না বলে মনে করা হচ্ছে। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প শুধু যে অনুপস্থিত থাকবেন, এমন নয়। ফ্লোরিডায় উন্মুক্ত সমাবেশে তাঁর সমর্থকদের উপস্থিত থাকার নির্দেশ দেবেন। অথচ করোনার চলমান সংক্রমণের কারণে জো বাইডেনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান হবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে। নির্বাচনের আগে ডেমোক্রেটিক দলের জাতীয় কনভেনশনের আদলে শপথ অনুষ্ঠান হবে বলে জো বাইডেন ইঙ্গিত দিয়েছেন।

নির্বাচনের আগেও ডোনাল্ড ট্রাম্পের কোনো সমাবেশে স্বাস্থ্যবিধি মানার বাধ্যবাধকতা দেখা যায়নি। ফ্লোরিডায় এমন সমাবেশ করে তিনি বাগাড়ম্বর করবেন। জো বাইডেনকে প্রেসিডেন্ট হিসেবে দেখার বদলে যুক্তরাষ্ট্রের বেশির ভাগ মানুষ এখনো সমাবেশ করে তাঁর বক্তৃতা শুনতে পছন্দ করছে বলে নিজেকে বাহবা দেবেন তিনি। সমাবেশে তিনি আবারও নির্বাচনে জালিয়াতির কথা বলে নিজের সমর্থকদের উদ্দীপ্ত করবেন।

যুক্তরাষ্ট্রের মানুষ বিশেষ করে সমর্থকদের কাছে নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করার প্রয়াসে সফলও হচ্ছেন ট্রাম্প। তাঁর সমর্থকদের অধিকাংশ এখনো মনে করে, ভোটে কোনো না কোনোভাবে কারচুপি করে ট্রাম্পকে হারানো হয়েছে। নিজের গোঁড়া সমর্থকদের আবারও বিভ্রান্ত করবেন।

নানা ভ্রান্ত ধারণাকে উসকে দিয়ে মার্কিন সমাজে বিভক্তি উসকে দেওয়ার রাজনীতি করে ইতিমধ্যে সফল হয়েছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। এখনো তিনি সে পথেই হাঁটছেন। ২০ জানুয়ারির পর একই পথে তাঁর নবযাত্রার ঘোষণা দেবেন তিনি—এমনটিই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকেরা।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here