বিদ্যার সুগন্ধির রহস্য

1

বিনোদন ডেস্ক : ‘শকুন্তলা দেবী’ ছবির ট্রেলার মুক্তির পর হইচই পড়ে গিয়েছিল। ছবির মূল নায়িকা বিদ্যা বালানের প্রশংসায় পঞ্চমুখ সমগ্র বলিউড। শুক্রবার আমাজন প্রাইম ভিডিওতে মুক্তি পেল ‘শকুন্তলা দেবী’। আবার এক ব্যতিক্রমী চরিত্রে সবার মন জয় করলেন বিদ্যা। এর আগে ‘ডার্টি পিকচার’, ‘কাহানি’, ‘বেগমজান’, ‘তুমহারি সুলু’সহ অসংখ্য ছবিতে অসংখ্যরূপে মাতিয়ে এসেছেন বিদ্যা। যেকোনো চরিত্রের সঙ্গে তিনি মিলেমিশে এক হয়ে যান। তবে চরিত্রের প্রয়োজন অনুযায়ী নিজের অভিনয়শৈলী, লুক, শারীরিক ভাষা, বাচনভঙ্গি ছাড়া আরও একটি জিনিস বদলান তিনি। সম্প্রতি প্রথম আলোর মুম্বাই প্রতিনিধির সঙ্গে এক ভার্চ্যুয়াল সাক্ষাৎকারে সে ব্যাপারে খোলসা করলেন বিদ্যা।

বিদ্যার মুখোমুখি হতেই উঠে এসেছিল ‘শকুন্তলা দেবী’ ছবিসংক্রান্ত নানান কথা। তিনি যখন যে চরিত্রে অভিনয় করেন পুরোপুরি সেই চরিত্রের মতো হয়ে ওঠেন। নিজের বাচনভঙ্গিও সম্পূর্ণ বদলে ফেলেন এই বলিউড তারকা। বিদ্যা এ প্রসঙ্গে বললেন, ‘আমি নানান ভাষায় কথা বলতে পারি। আর যখন যে ভাষায় কথা বলি তখন তাদের মতো হয়ে ওঠার চেষ্টা করি। আমি মাথায় রাখি, যখন বাংলাতে কথা বলব, তখন যেন আমাকে বাঙালির মতোই লাগে। তাই ছবির চরিত্র অনুযায়ী আমি আমার বাচনভঙ্গি, শারীরিক ভাষা সব বদলে ফেলি। ‘শকুন্তলা দেবী’ ছবিতে আমাকে দক্ষিণ ভারতীয় স্টাইলে অভিনয় করতে হয়েছিল। তবে আমার এই ধরনের অভিনয় করতে দুর্দান্ত লেগেছে। কারণ আমি দক্ষিণ ভারতীয় পরিবারের মেয়ে। আমার মা, বাবা, বোনেরা, সমগ্র পরিবার দক্ষিণ ভারতীয়র আদলে কথা বলেন।’

শোনা গিয়েছিল, চরিত্র অনুযায়ী বিদ্যা পারফিউম অর্থাৎ সুগন্ধি বদল করেন। তিনি যখন যে চরিত্রে অভিনয় করেন, সেই চরিত্রের জন্য একটা নির্দিষ্ট সুগন্ধি ব্যবহার করেন। বিদ্যা বলেন, ‘পরিণীতা ছবি থেকে আজ পর্যন্ত আমি এটা করে এসেছি। আমি মনে করি প্রত্যেক মানুষ আলাদা। আর প্রত্যেকের ব্যক্তিত্বও ভিন্ন হয়। প্রত্যেক মানুষের নিজস্ব একটা গন্ধ আছে। আমি তো একটাই মানুষ। কিন্তু ভিন্ন ভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করি। তাই প্রতিটি চরিত্রের জন্য আলাদা পারফিউম ব্যবহার করি। ওই গন্ধ নাকে এলেই আমি চরিত্রটায় ঢুকে যাই। শকুন্তলা দেবীর চরিত্রের জন্য আমি ডিওর-এর স্পাইস পারফিউম ব্যবহার করেছি। কারণ ওনার জীবন অত্যন্ত মসলাদার ছিল।’

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here