বিশ্বকাপের সেরা একাদশে সাকিব

3

স্পোর্টস ডেস্ক : যেমন পারফরম্যান্স দেখিয়েছেন তাতে বিশ্বকাপের সেরা একাদশে সাকিব আল হাসানের থাকাটা একরকম নিশ্চিতই ছিল। ব্যতিক্রম হয়নি। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট সংস্থা- আইসিসি’র বাছাইকৃত সেরা একাদশে একমাত্র বাংলাদেশি হিসেবে স্থান করে নিয়েছেন সাকিব। ভারত থেকে রোহিত শর্মা ও জসপ্রিত বুমরাহ রয়েছেন একাদশে। অন্যরা হলেন- রানার্সআপ নিউজিল্যান্ডের কেন উইলিয়ামসন-লকি ফার্গুসন, অস্ট্রেলিয়ার অ্যালেক্স ক্যারি ও মিচেল স্টার্ক আর চ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ডের জেসন রয়, জো রুট, বেন স্টোকস আর জফরা আর্চার। দ্বাদশ খেলোয়াড় নিউজিল্যান্ডের ট্রেন্ট বোল্ট।

চলতি আসরে সর্বাধিক রানের রেকর্ড ভারতের রোহিত শর্মার। ১০ ম্যাচে ৮১.০০ গড়ে ৬৪৮ রান সংগ্রহ করেন এই ডানহাতি। ৫ সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে এক আসরে সর্বাধিক সেঞ্চুরির রেকর্ড গড়েন রোহিত।

ওপেনিংয়ে তার সঙ্গে থাকা জেসন রয় ৮ ম্যাচে ৬৩.২৮ গড়ে করেছেন ৪৪৩ রান। এক সেঞ্চুরি চারটি হাফসেঞ্চুরি এসেছে তার ব্যাট থেকে। তিন নম্বর পজিশনে অধিনায়ক হিসেবে রাখা হয়েছে নিউজিল্যান্ডের কেন উইলিয়ামসনকে। আসরের সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হওয়া উইলিয়ামসন ফাইনালসহ ১০ ম্যাচ খেলে ৮২.৫৭ গড়ে ৫৭৮ রান করেন। অধিনায়ক হিসেবে এক আসরে সর্বাধিক রানের রেকর্ডটি এখন তার। ৪ নম্বর পজিশনে বাংলাদেশের সাকিব। টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ ৮৬.৫৭ ব্যাটিং গড়ে ৮ ম্যাচে সাকিবের সংগ্রহ ৬০৬ রান। আসরের তৃতীয় সর্বাধিক রান তার। ২ সেঞ্চুরির সঙ্গে ৫ হাফসেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন সাকিব। সঙ্গে নিয়েছেন ১১ উইকেট। ৫ নম্বরে আসরের পঞ্চম সর্বাধিক রানের মালিক ইংল্যান্ডের জো রুট। ২ সেঞ্চুরি ৩ হাফসেঞ্চুরিতে ১১ ম্যাচে ৫৫৬ রান সংগ্রহ করেন এই ডানহাতি। ৬ নম্বর স্থানটি অর্থাৎ অলরাউন্ডার হিসেবে রয়েছেন বেন স্টোকস। ফাইনালের সেরা খেলোয়াড় স্টোকস ১১ ম্যাচে ৫ ফিফটিতে ৪৬৫ রান করেন। এর মধ্যে চারটিই ৮০ প্লাস ইনিংস। ফাইনালে স্টোকস অপরাজিত ছিলেন ৮৪ রানে। পাশাপাশি ৭টি উইকেটও নিয়েছেন স্টোকস।

৭ নম্বরে উইকেটরক্ষক ক্যাটাগরিতে রয়েছেন, অস্ট্রেলিয়ার অ্যালেক্স ক্যারি। ১০ ম্যাচে ৬২.৫০ গড়ে ৩ ফিফটিতে ৩৭৫ রান করেছেন। উইকেটরক্ষকদের মধ্যে চলতি আসরে সর্বাধিক রান তারই। ৮ নম্বরে অস্ট্রেলিার বাঁহাতি পেসার মিচেল স্টার্ক। সেমিফাইনাল পর্যন্ত ১০ ম্যাচে ২৭ উইকেট নেন স্টার্ক। এক আসরে সর্বাধিক উইকেট নেয়ার বিশ্বরেকর্ড গড়েন তিনি। স্টার্কের সঙ্গে নতুন বলের পার্টনার হিসেবে ৯ নম্বরে রাখা হয়েছে ইংলিশ গতিতারকা জফরা আর্চারকে। বার্বাডিয়ান এই ক্রিকেটার ১১ ম্যাচে ২০ উইকেট নিয়ে আসরের তৃতীয় সর্বাধিক উইকেট শিকারি বোলার। ১০ ও ১১ নম্বরে কিউই ডানহাতি পেসার লকি ফার্গুসন ও ভারতের জসপ্রিত বুমরাহ। আসরের দ্বিতীয় সর্বাধিক উইকেট ফার্গুসনের। ৯ ম্যাচে নিয়েছেন ২১ উইকেট। বুমরাহ ২০১৯ বিশ্বকাপের সবচেয়ে কিপটে বোলার। ৯ ম্যাচে ১৮ উইকেট নিয়েছেন মাত্র ৪.৪১ ইকোনমি রেটে। দ্বাদশ খেলোয়াড় কিউই বাঁহাতি পেসার বোল্ট ১০ ম্যাচে নিয়েছেন ১৭ উইকেট। ফাইনালে সুপার ওভারে ১৫ রান দিয়ে নিউজিল্যান্ডের জন্য ম্যাচটা কঠিন করে ফেলেন বোল্ট।

বিশ্বকাপের সেরা একাদশ: রোহিত শর্মা (ভারত), জেসন রয় (ইংল্যান্ড), কেন উইলিয়ামসন (নিউজিল্যান্ড), সাকিব আল হাসান (বাংলাদেশ), জো রুট (ইংল্যান্ড), বেন স্টোকস (ইংল্যান্ড), অ্যালেক্স ক্যারি (অস্ট্রেলিয়া), মিচেল স্টার্ক (অস্ট্রেলিয়া), জফরা আর্চার (ইংল্যান্ড), লকি ফার্গুসন (নিউজিল্যান্ড), জসপ্রিত বুমরাহ (ভারত)।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here