মার্কিন নাগরিকত্ব পরীক্ষা পদ্ধতি সংশোধন হচ্ছে!

3

অনলাইন ডেস্ক : আমেরিকার নাগরিকত্ব পেতে হলে ইমিগ্রান্ট বা অভিবাসীরা একটি পরীক্ষায় অবশ্যই পাস করতে হয়। সিভিকস্ টেস্ট নামের এই পরীক্ষায় পরিবর্তন নিয়ে আসছে ট্রাম্প প্রশাসন। ইউএস সিটিজেনশিপ অ্যান্ড ইমিগ্রেশন সার্ভিস ১৯ জুলাই এমন কথা-ই জানিয়েছে। ঠিক কী ধরনের পরিবর্তন আনা হচ্ছে, তা অবশ্য এই ঘোষণায় বলা হয়নি। তবে আমেরিকার সরকার ব্যবস্থা ও তার ইতিহাস নিয়ে প্রশ্ন সংবলিত এই পরীক্ষার একটি পরিবর্তিত সংস্করণ আগামী সেপ্টেম্বর মাসের দিকে উপস্থাপন করা হবে। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের প্রথম মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই তা বাস্তবায়নের পরিকল্পনা রয়েছে এই প্রশাসনের।
সিটিজেনশিপ অ্যান্ড ইমিগ্রেশন সার্ভিসেসের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক কেন কুচিনেলি এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘কাউকে আমেরিকার নাগরিকত্ব দেওয়ার অর্থ হচ্ছে তার প্রতি সর্বোচ্চ জাতীয় সম্মান প্রদর্শন। সম্ভাব্য নতুন নাগরিকেরা যাতে আমেরিকার নাগরিকত্বের প্রকৃত মূল্য অনুধাবন করতে সক্ষম হন, যে সব মূল্যবোধ জাতি হিসেবে আমেরিকাকে ঐক্যবদ্ধ রাখে—সে সম্পর্কে তারা পর্যাপ্ত জ্ঞান অর্জন করে, সেসব বিবেচনায় রেখে নাগরিকত্ব পরীক্ষাকে যথাসম্ভব যুগোপযোগী এবং প্রাসঙ্গিক করে ঢেলে সাজানোটা আমাদের দায়িত্ব।’
ইমিগ্রেশন বিভাগের সাবেক পরিচালক এল ফ্রান্সিস কিসানা গত মে মাসে একটি স্মারকলিপিতে সাক্ষরকরেছেন, যাতে প্রতি ১০ বছরে নাগরিকত্ব পরীক্ষাকে হালনাগাদ ও পরিবর্তন করার নীতি প্রবর্তিত হয়েছে। ২০০৯ সালে সর্বশেষ নাগরিকত্ব পরীক্ষায় একটি পরিবর্তন আনা হয়েছিল।
কুচিনেলি ওয়াশিংটন পোস্টকে বলেন, পরিবর্তিত মার্কিন নাগরিক পরীক্ষা হবে আরও বেশি মানসম্মত। প্রশ্নের শব্দ চয়ন ও তথ্যগত পুনর্বিন্যাস করা হবে পরিবর্তিত পদ্ধতিতে। ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ বলছে, এসবই করা হবে বয়স্ক শিক্ষা বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে পরামর্শের ভিত্তিতে।
সিভিক্‌স পরীক্ষায় মাল্টিপল চয়েস পদ্ধতি অনুসরণ করা হয় না। মার্কিন নাগরিকত্বের জন্য আবেদনকারীকে ১০০ প্রশ্নের তালিকা থেকে বেছে নিয়ে ১০টি প্রশ্ন করা হয়। পাস করার জন্য ছয়টির উত্তর সঠিক হতে হবে।
জন্মগতভাবে আমেরিকান নাগরিকদের জন্য চ্যালেঞ্জিং বলে প্রমাণিত এসব কুইজ। ২০১৮ সালের এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, জন্মগতভাবে আমেরিকানদের মাত্র এক-তৃতীয়াংশ নাগরিকত্ব পরীক্ষায় সফলভাবে উত্তীর্ণ হতে পারেন। নাগরিকত্ব পরীক্ষায় আবেদনকারীকে যেসব প্রশ্ন জিজ্ঞেস করা হয়ে থাকে, তার মধ্যে অনেক কিছুই থাকে। যেমন, মন্ত্রিপরিষদের দুজন সদস্যের নাম বলুন, সংবিধানের চারটি সংশোধনীর মধ্যে যেকোনো একটি কী ছিল? আমেরিকার নির্বাচনে ভোট কে দিতে পারবে?—এ ধরনের প্রশ্ন করা হয়ে থাকে প্রার্থীকে।
আবেদনকারীকে সিভিক্‌স ও ইংরেজি পরীক্ষায় পাসের জন্য দুইবার সুযোগে দেওয়া হয়। ৯০ শতাংশ আবেদনকারী পাস করে থাকেন। সর্বশেষ প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, গেল বছর সাত লাখ ৫৭ হাজার মানুষের নাগরিকত্ব মঞ্জুর হয়েছে, যাহা গত পাঁচ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ।
নাগরিকত্ব পরীক্ষায় এই পরিবর্তন আইনজীবী ও ইমিগ্রান্ট অ্যাডভোকেসি গ্রুপ গভীরভাবে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখবেন বলেই অনুমান করা হচ্ছে। কারণ ট্রাম্পের নতুন ইমিগ্রেশন পুনর্বিন্যাস প্রস্তাবে দক্ষতাসম্পন্ন শ্রমিক নেওয়ার কথা, রিফিউজিসহ অ্যাসাইলাম প্রার্থীর বার্ষিক সংখ্যা নাটকীয়ভাবে কমিয়ে আনা ইত্যাদির অন্যায্য প্রভাব যাতে নাগরিকত্বের আবেদনকারীদের ওপর না পড়ে, সে বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের উদ্বেগ রয়েছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here