‘সরকারের শুভ বুদ্ধির উদয়ের’ প্রত্যাশা ফখরুলের

3

অনলাইন ডেস্ক : বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, এখন তাঁদের কাছে বড় চ্যালেঞ্জ হচ্ছে গণতন্ত্রকে পুনরুদ্ধার করা। বড় চ্যালেঞ্জ হচ্ছে এই দেশ একাত্তর সালে যে চেতনা নিয়ে সংগ্রাম করেছিল, লড়াই করেছিল, সেই গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র নির্মাণ করা, মানুষের অধিকারগুলো ফিরিয়ে দেওয়া।
আজ মঙ্গলবার সকালে দলের ৪২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে জিয়াউর রহমানের কবরে শ্রদ্ধা নিবেদনের পর মির্জা ফখরুল ইসলাম এ কথা বলেন।

সরকারের সমালোচনা করে মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, আজকে যে আওয়ামী লীগ গণতন্ত্র হরণ করে জনগণের অধিকার কেড়ে নিয়েছে, যে ভয়াবহ একদলীয় শাসনব্যবস্থা কায়েম করেছে, তার বিরুদ্ধে জনগণ ঐক্যবদ্ধ হয়ে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা করবে, বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে জনগণের শাসন ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করবে।
এ সময় দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির মেয়াদ বাড়াতে পরিবারের আবেদনের বিষয়ে সাংবাদিকেরা জানতে চাইলে বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘আমরা সব সময় বলেছি, দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে মিথ্যা মামলায় অন্যায়ভাবে সাজা দিয়েছে, যে সাজা তাঁর প্রাপ্য না এবং জামিনটা তাঁর প্রাপ্য ছিল। আমরা আশা করি, সরকারের শুভবুদ্ধির উদয় হবে। বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করবে।’

এর আগে মির্জা ফখরুল ইসলামের নেতৃত্বে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মওদুদ আহমদ, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান, সেলিমা রহমানসহ জ্যেষ্ঠ নেতারা জিয়াউর রহমানের কবরে শ্রদ্ধা জানান। তাঁরা দলের প্রতিষ্ঠাতার রুহের মাগফিরাত কামনা করে মোনাজাত করেন। এর পর ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণের কমিটির নেতাদের নিয়ে জিয়ার কবরে শ্রদ্ধা জানান দলের জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। এ সময় দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

১৯৭৮ সালের ১ সেপ্টেম্বর জিয়াউর রহমান বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল- বিএনপি গঠন করেন। ১৯৮১ সালে এক ব্যর্থ সামরিক অভ্যুত্থানে তিনি নিহত হওয়ার পর বিএনপির হাল ধরেন তাঁর স্ত্রী খালেদা জিয়া। এখন পর্যন্ত তিনিই বিএনপির নেতৃত্বে আছেন। তবে ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে দুর্নীতির মামলায় দণ্ডিত হওয়ার পর দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন খালেদা জিয়ার বড় ছেলে তারেক রহমান।

 

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here