৩৩তম ফোবানা সম্মেলনের প্রচারণায় গাড়ি শোভাযাত্রা

4

অনলাইন ডেস্ক : ৩৩তম ফোবানা সম্মেলনের জনসংযোগ ও প্রচারণা উপলক্ষে বিশাল গাড়ি শোভাযাত্রার আয়োজন করেছে আয়োজক সংগঠন ড্রামা সার্কেল। ৩৩তম ফোবানা সম্মেলন ৩০ থেকে ৩১ আগস্ট ও ১ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত হবে।
১৭ আগস্ট আয়োজিত এই শোভাযাত্রায় ফোবানা সম্মেলনের আয়োজক ছাড়াও বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশ নিতে ইচ্ছুক শিল্পী ও কলাকুশলীরাও অংশ নেন। ফোবানা কনভেনশনের হোস্ট কমিটির আহ্বায়ক নার্গিস আহমেদের জ্যামাইকার বাসভবন থেকে শোভাযাত্রাটি শুরু হয়। জ্যামাইকা হিলসাইড অ্যাভিনিউর একটি রেস্টুরেন্টের সামনে যাত্রা বিরতি করে শোভাযাত্রাটি। সেখানকার উপস্থিত বাঙালি কমিউনিটির লোকজনের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করে তাদের ফোবানার প্রচারপত্র দিয়ে আসন্ন ফোবানা সম্মেলনে যোগ দেওয়ার জন্য সাদর আমন্ত্রণ জানান নেতা-কর্মীরা।
পরে ব্রঙ্কসের আল আকসা মসজিদ সংলগ্ন এলাকায় শোভাযাত্রাটি যাত্রা বিরতি দেয়। সেখানে জনসংযোগ চলে বেশ কিছু সময় ধরে। এরপর গাড়িবহর আবার ফিরে আসে কুইন্সের দিকে। জ্যাকসন হাইটসে দীর্ঘ যাত্রা বিরতি নেয় নেতা-কর্মীরা। ডাইভার্সিটি প্লাজায় উপস্থিত বাঙালিদের সঙ্গে চলে প্রচারপত্র বিলি, কুশল বিনিময়, আমন্ত্রণ জানানো, ফটোসেশন ও লাইভ ভিডিওবার্তা। উপস্থিত সবার স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে ডাইভার্সিটি প্লাজায় একটি উৎসবের রূপ পায়। এরপর শোভাযাত্রা এগিয়ে যায় ব্রুকলিনের পথে। সেখানে চার্চ ম্যাকডোনাল্ডে জনসংযোগের পর শোভাযাত্রাটি আবারও জ্যামাইকায় ফিরে এসে শেষ হয়।
উত্তর আমেরিকাসহ পৃথিবীর নানা প্রান্ত থেকে বাঙালিরা এই সম্মেলনে যোগ দেবেন বলে আশা করছেন আয়োজকেরা। অনুষ্ঠানের মূল ভেন্যু লং আইল্যান্ডের নাসাউ কলিসিয়াম। দীর্ঘদিন ধরে শুরু হওয়া প্রস্তুতি পর্বও এখন চূড়ান্তের পথে। নিউইয়র্ক, নিউজার্সি, পেনসিলভানিয়া, বস্টন, টেক্সাস, ফ্লোরিডা, জর্জিয়া, ভার্জিনিয়া, মিশিগান, ক্যালিফোর্নিয়াসহ বাংলাদেশি অধ্যুষিত রাজ্য থেকে ৮০ টিরও অধিক সংগঠনের সদস্য-কর্মকর্তারা এই অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন।
ফোবানা কনভেনশনকে স্মরণীয় করে রাখতে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েই মাঠে নেমেছে হোস্ট সংগঠন ড্রামা সার্কেল। বাংলাদেশি নতুন প্রজন্মকে উৎসাহিত করার লক্ষ্যে ব্যাপক কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে বলে জানান আয়োজকেরা।
সম্মেলনে আটটি বিষয়ভিত্তিক সেমিনার, কাব্য জলসা ও আড্ডার আয়োজন করা হয়েছে। আয়োজন আছে একটি গোলটেবিল বৈঠকের। একই টেবিলে এক সঙ্গে বসবেন কয়েক প্রজন্ম। আলোচনা হবে নারীর ক্ষমতায়ন নিয়ে। নানা প্রজন্মের নারী-পুরুষ এই মুক্ত আলোচনায় যোগ দিয়ে নারীর ক্ষমতায়নের পথে বাধা কী কী তা চিহ্নিত করবেন। কীভাবে সমাজের নারী-পুরুষেরা সম্মিলিত প্রচেষ্টায় এসব বাধা অতিক্রম করে পুরুষের পাশাপাশি নারীর অগ্রযাত্রাকে এগিয়ে নিতে পারেন সেই বিষয়ে স্বতঃস্ফূর্ত আলোচনা হবে গোলটেবিলে।
ফোবানা ২০১৯ মিউজিক আইডল ও মিস ফোবানা ২০১৯ নামে দুটি ট্যালেন্ট হান্ট প্রতিযোগিতাও থাকছে। যারা আমদানি রপ্তানি ব্যবসা করেন, তাঁদের এই সম্মেলনে অংশগ্রহণ করতে উৎসাহিত করা হচ্ছে। আমেরিকা ও বাংলাদেশের মধ্যে সেতুবন্ধন তৈরি করে ব্যবসায়ীদের বিনিয়োগে আকৃষ্ট করতেও কাজ করছে ফোবানা।
এবারের সম্মেলনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দিক হচ্ছে ‘বিজনেস নেটওয়ার্কিং লাঞ্চ’ নামে একটি হাই প্রোফাইল বিজনেস সেশন। আমেরিকা ও বাংলাদেশের খ্যাতিমান বিজনেস ব্যক্তিত্বরা এতে অংশ নেবেন।
সম্মেলনের মূল অ্যারেনার সঙ্গে থাকছে ৬০ হাজার স্কয়ার ফুটের বিশাল এক্সপো সেন্টার, ফোবানা এক্সপোতে ১৫০টি স্টল থাকবে। স্পনসরদের স্টল ছাড়াও মুখরোচক নানা খাবার, বাংলাদেশি বিভিন্ন স্টলসহ স্বাস্থ্যসেবা, জব ফেয়ার ও আবাসন ফেয়ার থাকবে। প্রায় ২০ হাজার প্রবাসী বাংলাদেশি ফোবানা সম্মেলনে অংশ নেবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here